আর ধর্ষিতা হয়ো না, আর নাআর যেন কোনও দুঃসংবাদ কোথাও না শুনি যে তোমাকে ধর্ষণ করেছেকোনও এক হারামজাদা বা কোনও হারামজাদার দল।আমি আর দেখতে চাই না একটি ধর্ষিতারও কাতর

ওরা কারো কথায় কান দেয় না, যা ইচ্ছে তাই করে,কারও আদেশ উপদেশের তোয়াককা করে না,গলা ফাটিয়ে হাসে, চেঁচায়, যাকে তাকে ধমক দেয়নীতি রীতির বালাই নেই, সবাই একদিকে যায়, ওর

মেয়েটি আসছেমুখটি পোড়ামুখটি এখন আর মুখের মত দেখতে নয়,এক তাল কাদার ওপর দিয়ে যেন দৈত্য হেঁটে গেল,বীভৎস মুখটি। মুখ বলতে আসলে কিছু আর নেই।সে কোনও অ্যাসিড হাতে নিয়ে

মন তুমি ওঠো, ওঠো তুমি, তুমি ওঠো মন,মন মন মন ওঠো মন ওঠো মন তুমি ওঠো ওঠো মনমন ওঠো তুমিওঠো তুমি মনমন মন মনওঠো, লক্ষ্মী মন, তুমি ওঠো এবার,ওঠো ওই পুরুষ থেকে, মন ওঠো

তাদের জন্য আমার করুণা হয় যারা নারী নয় দুর্ভাগাদের জন্য আমার দুঃখ হয়, যারা নারী নয়। অবিশ্বাস্য এই শিল্প, অতুলনীয় শিল্প এই নারী, বিশ্বের বিস্ময়, বিচিত্

স্বাতী আর শাশ্বতী ছিল, ওদের মধ্যে কী করে যেন চলে এলো পদ্মাবতী, স্বর্গ থেকে উড়ে এল, কোনও হাওয়া তাকে এনে দিল, স্বপ্ন তাকে এনে দিল নাকি এ পাশের বাড়ির বউ 

‘শিউলি মেয়েটি এমন মিষ্টি করে হাসে আবার এমন কঠিন করে তাকায় যে না পারি চোখ সরাতে, না পারি রাখতে।’ অরুণ বোধহয় বলল, নাকি সন্দীপ বলল, দুজনের মধ্যে কেউ একজ

তোমাকে বলেছে –আস্তে,বলেছে –ধীরে.বলেছে –কথা না,বলেছে –চুপ।বলেছে– বসে থাকো,বলেছে– মাথা নোয়াও,বলেছে — কাঁদো।তুমি কি করবে জানো?তুমি এখন উঠে দাঁড়াবেপিঠটা টান টান কর

লোকটি বেরোলো ঘর থেকে, মুখে স্মিত হাসি,পাড়ায় বলাবলি হয়, হাসিটি বেশ মানায় ও মুখে,বয়স ষাট পেরিয়েছে কেউ বলবে না, স্ত্রীটিরও বেশ চোখ কাড়া রূপ।আজ দুপুরবেলা লোকটি একা

উঁচু দুটো বাড়ির পতন মানে উঁচু কিছুর পতনঅহঙ্কারের পতনমহাশক্তির পরাশক্তির অহঙ্কারের পতনতিমির গায়ে খলসে মাছের কামড় লাগলে তিমির বুঝি মান যায় না!সাকুল্যে তিন হাজার

1 2 3 4 8
Taslima Nasrin is a Bangladeshi-Swedish writer, physician, feminist, secular humanist, and activist. Taslima Nasrin is known for her writing on women's oppression and criticism of religion; some of Taslima Nasrin's books are banned in Bangladesh.
Article - Editor's Choice

Every young person is unique, an amazing combination of both genetic data and experiences that shape who they are. Even among identical twins, vast differences are often observed in behavior, preference, and way of thought. This leads to the inevitable conclusion that every young person has something very special to share with the world. There truly is no one else exactly like them on the entire planet.

The mounting pressure of increasing curriculum added with homework and extra-curricular classes is making childhood very stressful for kids as well as parents. Gone are the days when kids played in the building compound for hours, breaking glasses, eating munchies at some friends place, fighting over who won and who cheated.

In today’s world, it has become vital to act in accordance with the “social conscience”, rather than just doing what you want to do. To manage the way you think, behave and act; involves self-regulation. When you practice self-regulation, you are better able to see the good in other people.

Ever wondered how to come up with new ideas for your work projects, assignments, or product sales?